ঢাকাশুক্রবার , ১৮ মার্চ ২০২২
                     
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে তিনশ রানের মাইলফলকে বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক
মার্চ ১৮, ২০২২ ৯:০১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতেই কোচের সেই কথার প্রতিফলন দেখা গেছে বাংলাদেশ দলে। প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ওয়ানডেতে তিনশ রানের মাইলফলক পেরিয়েছে বাংলাদেশ। দলের তিন ব্যাটার সাকিব আল হাসান, লিটন দাশ ও ইয়াসির আলীর ফিফটিতে ভর করে এই মাইলফলক স্পর্শ করে বাংলাদেশ।

সেঞ্চুরিয়ন স্পোর্টস পার্কে টসে হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে তিন ফিফটিতে ৭ উইকেটে ৩১৪ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। এর আগে দেশটিতে ওয়ানডে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ছিল ৭ উইকেটে ২৭৮ রান। জিততে হলে ৩১৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে হবে প্রোটিয়াদের।

যদিও ম্যাচের শুরুতে সাবধানী ক্রিকেট খেলেন দুই টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল-লিটন দাস। শুরুর ১৫ ওভারে রান ছিল মাত্র ৪৬, তাও বিনা উইকেটে। তবে সময় গড়ানোর সঙ্গে ব্যাট হাতে খোলস ছেড়ে বের হয় দুই ওপেনার।

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রানের জুটি গড়েন তামিম-লিটন। তাদের ওপেনিং জুটিতে আসে ৯৫ রান। তামিম আন্দিলে ফেহলুকওয়াইয়োর এক নিরীহ বলে এলবির শিকার হয়ে ফিরলে ভাঙে জুটিটি।

টাইগার অধিনায়ক ৩ চার ও ১ ছয়ে ৪১ রান করে ফেরেন। তামিম-লিটন ওপেনিংয়েও সর্বোচ্চ রানের জুটি গড়েছেন। এর আগে দেশটিতে খেলা ৯ ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ওপেনিং জুটি ছিল ৪৬ রানের।

তামিম ফেরার পর ফিফটি স্পর্শ করে ফেরেন লিটনও। ৬৭ বলে ৫ চার ও ১ ছয়ে ৫০ রান করার পর কেশভ মহারাজের বলে বোল্ড হয়ে যান লিটন। এরপর মুশফিক ফেরেন ৯ রান করে।

দলীয় ১২৪ রানে ৩ উইকেট যাওয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে সর্বোচ্চ রানের জুটি গড়েন সাকিব-ইয়াসির। ১৩ ওভার ৩ বলে ১১৫ রানের জুটি গড়েন এই দুই ব্যাটার। এর আগে ২০১৭ সালে ইমরুল কায়েস ও মুশফিকুর রহিমের ৯৩ রানের জুটি ছিল সর্বোচ্চ।

ব্যাট হাতে ঝড়ো ক্রিকেট খেলা সাকিব এই ম্যাচে ফিফটির ‘ফিফটি’ হাঁকান। ৬৪ বলে ৭ চার ও ৩ ছয়ে ৭৭ রান করেন এই ব্যাটার। এনগিডির বলে স্কুপ করতে গিয়ে এলবির শিকার হয়ে ফেরেন।

সাকিবের পর ইয়াসিরও অর্ধশতকের দেখা পান। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি এই ব্যাটার। ক্যারিয়ারের প্রথম অর্ধশতক ছুঁয়েই রাবাদার বলে তার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ইয়াসির। ৪৪ বলে ৪ চার ও ২ ছয়ে ৫০ রান করেন এই ডানহাতি।

সাকিব-ইয়াসিরের বিদায়ের পর আফিফ, মাহমুদউল্লাহ, মেহেদি মিরাজ সবাই ব্যাট হাতে ছোট ছোট অবদান রাখেন। মাহমুদউল্লাহ ২৫, আফিফ ১৭ ও মিরাজ ১৩ বলে ২ ছয়ে করেন ১৯ রান। টাইগারদের পক্ষে ছয়জন ব্যাটার একশ এর অধিক স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করেন এই ম্যাচে। শেষ ১০ ওভারে ৯১ রান তোলে টাইগাররা।

প্রোটিয়ানদের পক্ষে মার্কো জানসেন ও কেশভ মহারাজ ২টি করে উইকেট শিকার করেন। এছাড়াও লুঙ্গি এনগিডি, রাবাদা ও ফেহলুকওয়াইয়ো ১টি করে উইকেট শিকার করেন।
বিএ/

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।