ঢাকারবিবার , ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সীমান্ত হত্যা বন্ধ ও মিয়ানমারের আগ্রাসন বন্ধের দাবিতে মিছিলে পুলিশের বাধা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২৪ ৫:২৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) সীমান্ত হত্যা বন্ধ ও মিয়ানমারের আগ্রাসন বন্ধের দাবিতে প্রতীক লাশের মিছিল ও সমাবেশ করতে গিয়ে রাজশাহীতে বাধার মুখে পড়েছেন হানিফ বাংলাদেশী। আজ রোববার দুপুর দেড়টায় রাজশাহী প্রেসক্লাবের সামনে তাঁর এ কর্মসূচি ছিল।

মো. হানিফ (৪৩) নামের এই ব্যক্তি ঢাকার তোপখানা রোড এলাকার বাসিন্দা। সম্প্রতি কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে এ কর্মসূচি শুরু করেছেন। বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে কর্মসূচি পালনের পর রাজশাহী আসেন। ইতিমধ্যে তিনি দেশের ২২টি জেলায় এ কর্মসূচি পালন করেছেন বলে জানিয়েছেন।

এর আগে ২০১৯ সালে ঘুষ-দুর্নীতি ও নৈতিক অবক্ষয়ের প্রতিবাদে হানিফ দেশের ৬৪ জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদান এবং জনসাধারণের মধ্যে লিফলেট বিতরণ কর্মসূচি পালন করেন। তখন থেকে তিনি ‘হানিফ বাংলাদেশী’ নামে পরিচিত।

সরেজমিনে দেখা যায়, রোববার দুপুরে তিনি কয়েকজন তরুণকে সঙ্গে নিয়ে রাজশাহী প্রেসক্লাবের সমাবেশে প্রতিবাদ সমাবেশ করতে আসেন। এ সময় তাদের কাছে কফিনে জড়ানো প্রতীকী লাশ ও হাতে প্ল্যাকার্ড-ফেস্টুন ছিল। একটি ফেস্টুনের নিচে ‘বাংলাদেশ গণশক্তি পার্টি’ লেখা ছিল। হানিফ বাংলাদেশীর এ কর্মসূচি শুরুর আগে থেকেই সেখানে রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার হাফিজ হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সদস্য অবস্থান করছিল। হানিফ বাংলাদেশী সমাবেশ শুরু করার পরই পুলিশ তাকে বাধা দেয়। একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে তাঁর বাগ্‌বিতণ্ডা হয়।

পুলিশ জানায়, এ কর্মসূচির জন্য আরএমপির কাছ থেকে আগে অনুমতি গ্রহণের প্রয়োজন ছিল। অনুমতি ছাড়া এ ধরনের সমাবেশ বেআইনি।

প্রত্যুত্তরে হানিফ বাংলাদেশী জানান, তিনি রাষ্ট্রবিরোধী কোনো কর্মসূচি পালন করছেন না। সীমান্ত হত্যা ও মিয়ানমারের আগ্রাসনের প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।

হানিফ দাবি করেছেন, তিনি সারা দেশে কর্মসূচি পালন করবেন এ বিষয়টি পুলিশ সদর দপ্তরকে অবহিত করেছেন। তিনি এ সংক্রান্ত একটি কাগজও দেখান। এই চিঠিটি তিনি পুলিশ সদর দপ্তরেও দিয়েছেন।

তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, অবহিত করে শুধু চিঠি দিলেই হবে না। পুলিশের পক্ষ থেকে তাকে অনুমতিপত্রও নিতে হবে। সেটি হানিফের কাছে নেই। অনুমতি থাকলে পুলিশই তাকে কর্মসূচি পালনে সহযোগিতা করত।

একপর্যায়ে পুলিশ তার কয়েকটি প্রতীকী লাশ কেড়ে নেয় এবং তাকে স্থান ত্যাগ করতে বাধ্য করে। পরে হানিফ ও তার সঙ্গে আসা কয়েকজন চলে যান।

এ বিষয়ে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র জামিরুল ইসলাম  বলেন, ‘রাজশাহী মহানগর এলাকায় কোনো কর্মসূচি পালন করতে হলে আগে থেকেই আরএমপিকে চিঠি দিয়ে জানাতে হবে এবং অনুমতি নিতে হবে। হানিফ তাঁর কর্মসূচির জন্য এসবের কিছুই করেননি। আরএমপির অনুমতি ছাড়া যে কোনো সমাবেশ অবৈধ। এ কারণে তার কর্মসূচি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।’

জ/ন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।