সবার আগে.সর্বশেষ  
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাবি ছাত্রলীগ কর্মী হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে শোকমিছিল

R khan
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৮ ৬:২৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রাবি প্রতিনিধিঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ছাত্রলীগকর্মী ফারুক হোসেন হত্যাকাণ্ডের বিচারকার্য আট বছরেও শেষ হয়নি। এদিকে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার বিচারকার্য দ্রুত সম্পন্নের দাবি জানিয়েছে ছাত্রলীগ ও তার স্বজনরা। আজ শহীদ ফারুক হত্যা দিবস উপলক্ষে শোকমিছিল ও সমাবেশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।

এদিন বেলা ১১টায় ছাত্রলীগের দলীয় টেন্ট থেকে একটি শোক মিছিল ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে শাহ্ মখদুম হলের সামনে অবস্থিত ফারুক স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও নিহত ফারুকের বোন আসমা আক্তার।

সমাবেশে তারা বলেন, আট বছর পরও চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের বিচার পায়নি। আমরা হতাশ যে আদৌও কি এই মামলা নিষ্পত্তি হবে বা হত্যাকারীরা শাস্তি পাবে? আমরা প্রশাসনকে বলতে চাই অতিদ্রুত এ বিচারকার্য সম্পন্ন করা হোক। এসময় ছাত্রলীগের সকল স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া বিকেলে বাদ আছর শাহ্ মখদুম হলে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

এর আগে ২০১০ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি আবাসিক হল দখলকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে শিবিরের সংঘর্ষ ঘটে। ফারুক হোসেনকে খুন করে ম্যানহোলে ফেলে রাখা হয়। ঘটনার পরদিন রাবি ছাত্রলীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মাজেদুল ইসলাম অপু বাদী হয়ে শিবিরের ৩৫ জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে নগরীর মতিহার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এছাড়া বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে আরো একটি মামলা দায়ের করে মতিহার থানা পুলিশ।

এরপর চারবার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তনের পর ২০১২ সালের ৩০ জুলাই রাজপাড়া থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিল্লুর রহমান চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১১০ জনকে অভিযুক্ত করে ফারুক হত্যা মামলার চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামী, দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, ফাঁসি কার্যকর হওয়া আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ এবং রাবি শিবিরের তৎকালীন নেতাকর্মীরা অভিযুক্ত ছিলেন।

এ বিষয়ে মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম বলেন, বিষ্ফোরক মামলাটির জন্য তিন জন সাক্ষী হয়েছে। সাত দিনের মধ্যে আরো কয়েকজনকে সাক্ষী করে সেটা আদালতে উপস্থাপন করা হবে। আর হত্যা মামলাটিতে ১১০ জনকে আসামি করে পুলিশ চার্জশিট দিয়েছিল। মামলাটি এখন রাজশাহী মেট্রোপলিটন আদালতে বিচারাধীন আছে। আসামিদের মধ্যে অনেকেই পলাতক।

খবর২৪ঘণ্টা.কম/রখ

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।