আজ বুধবার, ৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং, ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

রাজশাহীতে ৪ দিন ধরে থেমে থেমে বৃষ্টি, কৃষকের মুখে হাসি

নিজস্ব প্রতিবেদক :
গত চার দিন ধরে রাজশাহী মহানগর ও আশেপাশের উপজেলায় থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। আষাঢ়ের শেষ দিকে হলেও টানা বৃষ্টি হওয়ায় কৃষকদের মুখে হাসি ফুটেছে। আষাঢ় মাস শেষের দিকে হলেও বৃষ্টি না হওয়ায় কৃষকরা আমন ধান রোপন নিয়ে কিছুটা দুশ্চিন্তায় ছিলেন কৃষকরা। কিন্ত চার দিন ধরে বৃষ্টি হওয়ায় কৃষকরা কিছুটা চিন্তা মুক্ত হয়েছেন। তবে এখনো ভারি বৃষ্টি না হওয়ায় আমন ধান রোপনের উপযোগি হয়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৬ জুলাই থেকে রাজশাহী মহানগর ও জেলার ৮টি উপজেলায় থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। ৬ জুলাই থেকে সকাল, দুপুর, সন্ধ্যা ও রাত যখন-তখন বৃষ্টি হচ্ছে। কয়েকদিন ধরে বৃষ্টি

হওয়ায় রাজশাহীর আবহাওয়া কিছুটা শীতল হয়েছে। তবে গরম খুব বেশি কমেনি। রাজশাহী জেলায় এবার ৭৪ হাজার ৯৮১ হেক্টর জমিতে আমন ধান রোপনের লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করা হয়েছে। সব থেকে বেশি আমন ধান রোপনের লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করা হয়েছে গোদাগাড়ী ও তানোর উপজেলায়। গোদাগাড়ী উপজেলায় ২৩ হাজার ৭৪৬ ও তানোর উপজেলায় ২২ হাজার ৫৫ হেক্টর জমিতে এ বছর আমন ধান রোপন করা হবে। বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি হওয়ায় এ অঞ্চলের কৃষকরা কিছুটা স্বস্তি পেয়েছেন। তবে আমন ধান রোপনের জন্য আরো ভারি বৃষ্টির প্রয়োজন। তবে কৃত্রিম সেচের মাধ্যমে ইতিমধ্যেই জেলার তানোর উপজেলায় কিছু জমিতে আমন রোপন শুরু হয়েছে। তানোর উপজেলার শহিদুল নামের এক কৃষকের

সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আষাঢ় মাস চলে গেলেও বৃষ্টি না হওয়ায় কিছুটা দুঃশ্চিন্তা হচ্ছিলো। কিন্ত কয়েকদিন থেকে বৃষ্টি হওয়ায় স্বস্তি পেয়েছি। আল্লাহ চাইলে সময় মতো আমন ধান রোপন করতে পারবো। শুধু ওই কৃষকই নন অন্যান্য কৃষকও বৃষ্টি হওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন। এদিকে, বৃষ্টিতে আবহাওয়া শীতল হয়ে নগর জীবনে কিছুটা স্বস্তি আসলেও পাড়া-মহল্লার ড্রেন ও এবং রাস্তায় জলাবদ্ধতা তৈরি হওয়ায় কিছুটা ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন নগরবাসী। সামান্য বৃষ্টিতেই পাড়া-মহল্লার ড্রেন ও রাস্তায় পানি জমে যাচ্ছে। তাই কিছুটা ভোগান্তি হচ্ছে। নগরবাসীর অভিযোগ ড্রেনগুলো সময়মতো পরিস্কার না করায় জলাবদ্ধা তৈরি হয়। তাই এই বর্ষাকালে ড্রেনগুলো পরিস্কারের দাবি জানিয়েছেন

তারা।রাজশাহী আবহাওয়া অফিস জানায়, গত ৬ জুলাই থেকে ৯ জুলাই দুপুর পর্যন্ত মোট ৫৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এরমধ্যে ৬ জুলাই ১২ দশমিক ১ মিলিমিটার, ৭ জুলাই ১৩ দশমিক ১ মিলিমিটার, ৮ জুলাই ২০ দশমিক ২ মিলিমিটার ও ৯ জুলাই মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ১২ দশমিক ৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

এস/আর


Download our Mobile Apps Today