আজ সোমবার, ৪ঠা নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ২০শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভারতকে হারিয়ে ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ

খবর২৪ঘণ্টা স্পোর্টস ডেস্ক: নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে বাংলাদেশকে ছোট লক্ষ্য এনে দেন বোলাররা। ব্যাটিংয়ে বাকি কাজ সেরেছেন সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ নাঈম, মুশফিকুর রহিম। দুই বিভাগের দারুণ দৃঢ়তায় টি-টোয়েন্টিতে প্রথমবারের মতো ভারতকে সাত উইকেটে হারিয়ে ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশ।

এর আগে এই সংস্করণে গত আটবারের দেখায় ভারতের বিপক্ষে কখনো জিততে পারেনি বাংলাদেশ। অবশেষে সেই আক্ষেপ ঘুচল। এই জয়ের সুবাদে তিন ম্যাচ সিরিজে ১-০তে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ।

অবশ্য ভারতের দেওয়া ১৪৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছিল বাংলাদেশ। ইনিংসের প্রথম ওভারেই হারায় ওপেনার লিটন দাসসকে। তবে দ্বিতীয় উইকেটে মোহাম্মদ নাঈম ও সৌম্য সরকারের দ্বিতীয় উইকেটে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। দুই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান মিলে গড়েন ৪৬ রানের জুটি।

ইনিংসের অষ্টম ওভারে নাঈম-সৌম্যের ছন্দ থামান চাহাল। শেখর ধাওয়ানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে দিলেন নাঈমকে। ফেরার আগে ২৬ বলে ২৮ রান করেন অভিষিক্ত নাঈম।

নাঈমের পর মুশফিকের সঙ্গে জুটি বাঁধেন সৌম্য। দুজন মিলে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেন। তবে স্লো উইকেটে রানের গতি বাড়াতে হিমিসিম খেতে হয়েছে সফরকারীদের। রানের গতি বাড়াতে থাকা সৌম্য ফিরেছেন ৩৯ রানে। শেষের দিকে মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। ৪৩ বলে ৬০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন মুশফিক। ১৫ রান করেন মাহমুদউল্লাহ।

এরআগে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ভারতকে ১৪৮ রানে থামিয়ে দেয় বাংলাদেশ। দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে টসে জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠান বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের প্রথম ওভারেই সাফল্যের দেখা পায় বাংলাদেশ। ওভারের ষষ্ঠ বলে ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে এলবির ফাঁদে ফেলেন পেসার শফিউল ইসলাম। রিভিউ নেন রোহিত। লাভ হয়নি। অফ স্টাম্পের বাইরের বল রোহিতের পায়ে লাগে। ফলে পাঁচ বলে নয় রান করে ফিরতে হয় স্বাগতিক অধিনায়ককে।

রোহিত হারানো ভারতকে পাওয়ার প্লেতে ঝড় তুলতে দেননি বাংলাদেশের বোলাররা। প্রথম ছয় ওভারে এক উইকেটে ৩৫ রান তোলে স্বাগতিকরা।

ভারত শিবিরে দ্বিতীয় ধাক্কা দেন লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। ব্যক্তিগত প্রথম ওভারেই সাফল্য পান তিনি। ফিরিয়ে দেন লোকেশ রাহুলকে। ফেরার আগে ১৭ বলে ১৫ রান করেন রাহুল। নিজের তৃতীয় ওভারে এসেও উইকেট পান বিপ্লব। মোহাম্মদ নাঈমের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরান শ্রেয়াসকে। আউট হওয়ার আগে ১৩ বলে ২২ রান করেন শ্রেয়াস।

প্রথম ১০ ওভারে বেশিদূর এগুতে পারেনি ভারত। দুই উইকেট হারিয়ে তোলে ৬৯ রান। ওপেনিংয়ে নেমে ভারতের রানের গতি ধরে রাখার চেষ্টা করেন শেখর ধাওয়ান। কিন্তু বেশিদূর যেতে পারেননি। ১৪.৫ ওভারে রানআউট হন তিনি। স্লো ব্যাটিংয়ে ৪২ বলে ৪১ রান করেন এই ওপেনার। এরপর অভিষিক্ত শিবমকে টিকতে দেননি আফিফ হোসেন। নিজের বলে নিজেই দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়ে ফেরান তরুণ এই ব্যাটসম্যানকে। অভিষেকে এক রান করেন শিবম। এরপর শেষের দিকের ব্যাটসম্যানদের ওপর ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ছয় উইকেটে ১৪৮ রান সংগ্রহ করে রোহিত শর্মার দল।

বাংলাদেশের হয়ে বল হাতে তিন ওভারে ২২ রান দিয়ে দুই উইকেট সংগ্রহ করেন বিপ্লব। চার ওভারে ৩৬ রান দিয়ে দুই উইকেট নেন শফিউল ইসলাম। এক উইকেট নেন আফিফ হোসেন।

খবর২৪ঘণ্টা, এমকে


Download our Mobile Apps Today