আজ রবিবার, ৭ই জুলাই, ২০১৯ ইং, ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দালাল ও হয়রানি মুক্ত পাসপোর্ট অফিস গড়তে চাই: রাজশাহীর নয়া সহকারী পরিচালক

রাজশাহী বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের নয়া সহকারী পরিচালক মো. হাফিজুর রহমান। ছবি : খবর ২৪ঘণ্টা

ওমর ফারুক : 

দালাল ও সেবা গ্রহীতাদের হয়রানি মুক্ত পাসপোর্ট অফিস গড়তে চাই বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিসের নয়া সহকারী পরিচালক মো. হাফিজুর রহমান। বুধবার দুপুরে তার দপ্তরে খবর ২৪ ঘণ্টার কাছে দেওয়া একান্ত সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন তিনি। গত ২৭ আগস্ট তিনি রাজশাহী বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসে যোগদান করেন। তিনি বলেন, রাজশাহী পাসপোর্ট অফিসে যোগদানের পর থেকেই দালাল চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। এ অফিসে দালালের কোন স্থান নেই। ইতিমধ্যে দু’জন দালালকে গ্রেফতার করানো হয়েছে। পাসপোর্ট অফিসের সামনের রাস্তাতেও দালালদের দাঁড়াতে দেওয়া হবে না।

দালালমুক্ত করতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। অফিসে যোগদানের পর চার আনসার সদস্যের দালালের সাথে সখ্যতার তথ্য পাওয়ার পর তাদের বদলির সুপারিশ করা হয়েছে। সেবা গ্রহীতাদের কম সময়ের মধ্যে সেবা দেওয়ার নির্দেশনা অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দেওয়া হয়েছে। পুরানো যেসব পাসপোর্ট বিভিন্ন কারণে আঁটকে আছে সেগুলো কম সময়ের নিষ্পত্তি করে প্রদানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। নতুন যারা আবেদন করছে তারা যাতে হয়রানি ছাড়া সেবা পায় সেটিও নিশ্চিত করা হচ্ছে। বিশেষ করে বিভিন্ন সমস্যা দেখিয়ে যেসব পাসপোর্ট আঁটকে দেওয়া হয় সেসব সমস্যাগুলো একবারে আবেদনের উপরে লেখার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, “পাসপোর্ট নাগরিক অধিকার, নিঃস্বার্থ সেবাই অঙ্গীকার” স্লোগানে সেবা গ্রহীতাদের সেবা দেওয়া হবে। অফিসের কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী হয়রানি করলে তা লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে জানানো যাবে। অভিযোগকারীদের পরিচয় গোপন রাখা হবে। যেকোন আবেদনকারী সমস্যা নিয়ে সরাসরি আমার সাথে সাক্ষাত করতে পারবে। আমি জনগনের জন্য কাজ করতে চাই। দুর্নীতি ও হয়রানি মুক্ত সেবা প্রদানের লক্ষ্যে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করনীয় ঠিক করা হয়েছে। সেগুলোর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হলো, দালাল ও দুর্নীতিমুক্ত সেবা কার্যক্রম,

সেবা প্রার্থীগনের আবেদনের ত্রটি বিচ্যুতিগুলো একেবারে আবেদনের প্রথম পৃষ্ঠায় লিখে জানিয়ে দেওয়া, আবেদনকারীদের সাথে খারাপ আচরণ না করা, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বড়, সেবা প্রার্থীগণ ছোট এ ধরণের মনোভাব বর্জন করা। এছাড়া সেবাগ্রহীতাদেরও দালালের সহযোগিতা না নিয়ে নিজের আবেদন নিজে করা বা নিজে না পারলে শিক্ষিত প্রতিবেশীর সহযোগিতা নেওয়ারও পরামর্শ দেন তিনি। সবশেষে তিনি বলেন, পাসপোর্ট অফিসে হয় আমি থাকবো, নাহলে দালালরা থাকবে।

খবর২৪ঘণ্টা/এমকে 


Download our Mobile Apps Today